মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
এয়ারপোর্ট থানা, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ, সিলেট

 এয়ারপোর্ট থানাটি সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ, সিলেট এর নিয়ন্ত্রনাধীন সুনাম অতিহ্যবাহবহনকারী থানা। গত ১১আগষ্ট ২০১১ইং তারিখ যেৌথভাবে উদ্ভোধন করেন বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় অর্থ মন্ত্রী জনাব আবুল মাল আব্দুল মুহিত (এম,পি) ও মাননীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন (এম,পি)। এয়ারপোর্ট থানাটি  সিলেট ওসমানী বিমান বন্দর, সিলেট  এর পশ্চিম পার্শ্বেই অবস্থিত।

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

১। এয়ারপোর্ট থানা জনগণের সেবা প্রদানকারী একটি প্রতিষ্ঠান

২। জাতি,ধর্ম,বর্ণ ও রাজনৈতিক/ সামাজিক/অর্থনৈতিক শ্রেণী নির্বিশেষে সকল নাগরিকের সমান আইনগত অধিকার প্রদান

৩। থানায় আগত সাহায্য প্রার্থীদের আগে আসা ব্যক্তিকে আগে সেবা প্রদান করা

৪। থানায় সাহায্য প্রার্থী সকল ব্যক্তিকে থানা পুলিশ সম্মান প্রদর্শন এবং সম্মান সুচক সম্বোধন করা

৫। থানায় জিডি করতে আসা ব্যক্তির আবেদনকৃত বিষয়ে ডিউটি অফিসার সর্বত্নক সহযোগিতা প্রদান  করা এবং আদনের ২য় কপিতে জিডি নম্বর,তারিখ এবং সংশিস্নষ্ট অফিসারের স্বাক্ষর ও সীলমোহর সহ তা আবেদনকারীকে প্রদান করা এবং বর্ণিত জিডি সংক্রান্ত বিষয়ে যথাশীঘ্র সম্ভব ব্যবস্থা গ্রহণ এবং গৃহীত ব্যবস্থা পুনরায় আবেদনকারীকে অবহিত করা।

৬। থানায় মামলা করতে আসা ব্যক্তির মৌখিক/লিখিত বক্তব্য অফিসার ইনচার্জ কর্তৃক এজাহার ভুক্ত করা এবং আগত ব্যক্তিকে মামলার নম্বর, তারিখও ধারা  সহ তদন্তকারী অফিসারের নাম ও পদবী অবহিত করবে। তদন্তকারী অফিসার এজাহারকারীর সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করা করে তাকে তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত করবে এবং তদন্ত সমাপ্ত হলে তাকে ফলাফল লিখিত ভাবে  জানিয়ে দিবে।

৭। আহত ভিকটিমকে থানা হতে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করা এবং এ বিষয়ে থানা সকল মেডিকেল সার্টিফিকেট সংগ্রহ করা।

৮। শিশু/ কিশোর অপরাধী সংক্রামত্ম বিষয়ে শিশু আইন, ১৯৭৪ এর বিধান অনুসরণ করা এবং তারা যাতে কোন ভাবেই বয়স্ক অপরাধীর সংস্পর্শ না আসতে পারে তা নিশ্চিত করা। এ জন্য দেশের সকল থানায় পর্যায়ক্রমে কিশোর হাজত খানার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

৯। মহিলা আসামী/ভিকটিমকে যথাসম্ভব মহিলা পুলিশের মাধ্যমে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

১০। পাসপোর্ট ভেরিফিকেশন/আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স ইত্যাদি বিষয়ে  সকল অনুসন্ধান প্রাপ্তির ০৩ (তিন) দিনের মধ্যে তদন্ত সম্পন্ন করে থানা হতে সংশিস্নষ্ট ইউনিটে প্রতিবেদন প্রেরণ করা।

১১। থানা পুলিশ সদস্যগণ কমিউনিটির সাথে নিরবছিন্ন ভাবে যোগাযোগ রক্ষা করা।

১২। অপরাধ দমন মূলক /জনসংযোগমূলক সভার মাধ্যমে সামাজিক সমস্যা এবং আইনগত সমাধান করা

১৩। বিদেশে চাকুরী/ উচ্চ শিক্ষার জন্য গমনেচ্ছু প্রার্থীদের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট প্রদান

১৪। ব্যাংক হইতে কোন প্রতিষ্ঠান অধিক পরিমান টাকা উত্তোলন করলে উক্ত টাকা নিরাপদে নেওয়ার জন্য চাহিদা অনুযায়ী পুলিশ এস্কটের ব্যবস্থা করা

১৫। যানবহন নিয়ন্ত্রনে ট্রাফিক সুবিধা প্রদান করা।

১। থানা জনগণের সেবা প্রদানকারী একটি প্রতিষ্ঠান

২। জাতি,ধর্ম,বর্ণ ও রাজনৈতিক/ সামাজিক/অর্থনৈতিক শ্রেণী নির্বিশেষে সকল নাগরিকের সমান আইনগত অধিকার প্রদান

৩। থানায় আগত সাহায্য প্রার্থীদের আগে আসা ব্যক্তিকে আগে সেবা প্রদান করা

৪। থানায় সাহায্য প্রার্থী সকল ব্যক্তিকে থানা পুলিশ সম্মান প্রদর্শন এবং সম্মান সুচক সম্বোধন করা

৫। থানায় জিডি করতে আসা ব্যক্তির আবেদনকৃত বিষয়ে ডিউটি অফিসার সর্বত্নক সহযোগিতা প্রদান  করা এবং আদনের ২য় কপিতে জিডি নম্বর,তারিখ এবং সংশিস্নষ্ট অফিসারের স্বাক্ষর ও সীলমোহর সহ তা আবেদনকারীকে প্রদান করা এবং বর্ণিত জিডি সংক্রান্ত বিষয়ে যথাশীঘ্র সম্ভব ব্যবস্থা গ্রহণ এবং গৃহীত ব্যবস্থা পুনরায় আবেদনকারীকে অবহিত করা।

৬। থানায় মামলা করতে আসা ব্যক্তির মৌখিক/লিখিত বক্তব্য অফিসার ইনচার্জ কর্তৃক এজাহার ভুক্ত করা এবং আগত ব্যক্তিকে মামলার নম্বর, তারিখও ধারা  সহ তদন্তকারী অফিসারের নাম ও পদবী অবহিত করবে। তদন্তকারী অফিসার এজাহারকারীর সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করা করে তাকে তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত করবে এবং তদন্ত সমাপ্ত হলে তাকে ফলাফল লিখিত ভাবে  জানিয়ে দিবে।

৭। আহত ভিকটিমকে থানা হতে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করা এবং এ বিষয়ে থানা সকল মেডিকেল সার্টিফিকেট সংগ্রহ করা।

৮। শিশু/ কিশোর অপরাধী সংক্রামত্ম বিষয়ে শিশু আইন, ১৯৭৪ এর বিধান অনুসরণ করা এবং তারা যাতে কোন ভাবেই বয়স্ক অপরাধীর সংস্পর্শ না আসতে পারে তা নিশ্চিত করা। এ জন্য দেশের সকল থানায় পর্যায়ক্রমে কিশোর হাজত খানার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

৯। মহিলা আসামী/ভিকটিমকে যথাসম্ভব মহিলা পুলিশের মাধ্যমে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

১০। পাসপোর্ট ভেরিফিকেশন/আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স ইত্যাদি বিষয়ে  সকল অনুসন্ধান প্রাপ্তির ০৩ (তিন) দিনের মধ্যে তদন্ত সম্পন্ন করে থানা হতে সংশিস্নষ্ট ইউনিটে প্রতিবেদন প্রেরণ করা।

১১। থানা পুলিশ সদস্যগণ কমিউনিটির সাথে নিরবছিন্ন ভাবে যোগাযোগ রক্ষা করা।

১২। অপরাধ দমন মূলক /জনসংযোগমূলক সভার মাধ্যমে সামাজিক সমস্যা এবং আইনগত সমাধান করা

১৩। বিদেশে চাকুরী/ উচ্চ শিক্ষার জন্য গমনেচ্ছু প্রার্থীদের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট প্রদান

১৪। ব্যাংক হইতে কোন প্রতিষ্ঠান অধিক পরিমান টাকা উত্তোলন করলে উক্ত টাকা নিরাপদে নেওয়ার জন্য চাহিদা অনুযায়ী পুলিশ এস্কটের ব্যবস্থা করা

১৫। যানবহন নিয়ন্ত্রনে ট্রাফিক সুবিধা প্রদান করা।

 

** সাধারণ ডায়েরী জন্য একটি আবেদন লিখে থানার অফিস কক্ষে দিলে তারা এটিকে নোট করবে।

 

** শিশু/ কিশোর অপরাধী সংক্রামত্ম বিষয়ে শিশু আইন, ১৯৭৪ এর বিধান অনুসরণ করা এবং তারা যাতে কোন ভাবেই বয়স্ক অপরাধীর সংস্পর্শ না আসতে পারে তা নিশ্চিত করা। এ জন্য দেশের সকল থানায় পর্যায়ক্রমে কিশোর হাজত খানার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

ছবি নাম মোবাইল
মোহাম্মদ শাহ জামান ০১৭১৩-৩৭৪৫২১

ছবি নাম মোবাইল
জনাব মো: সাজ্জাদুর রহমান ০১৭১৫২১০৬২৯

১। এয়ারপোর্ট থানা জনগণের সেবা প্রদানকারী একটি প্রতিষ্ঠান

২। জাতি,ধর্ম,বর্ণ ও রাজনৈতিক/ সামাজিক/অর্থনৈতিক শ্রেণী নির্বিশেষে সকল নাগরিকের সমান আইনগত অধিকার প্রদান

৩। থানায় আগত সাহায্য প্রার্থীদের আগে আসা ব্যক্তিকে আগে সেবা প্রদান করা

৪। থানায় সাহায্য প্রার্থী সকল ব্যক্তিকে থানা পুলিশ সম্মান প্রদর্শন এবং সম্মান সুচক সম্বোধন করা

৫। থানায় জিডি করতে আসা ব্যক্তির আবেদনকৃত বিষয়ে ডিউটি অফিসার সর্বত্নক সহযোগিতা প্রদান  করা এবং আদনের ২য় কপিতে জিডি নম্বর,তারিখ এবং সংশিস্নষ্ট অফিসারের স্বাক্ষর ও সীলমোহর সহ তা আবেদনকারীকে প্রদান করা এবং বর্ণিত জিডি সংক্রান্ত বিষয়ে যথাশীঘ্র সম্ভব ব্যবস্থা গ্রহণ এবং গৃহীত ব্যবস্থা পুনরায় আবেদনকারীকে অবহিত করা।

৬। থানায় মামলা করতে আসা ব্যক্তির মৌখিক/লিখিত বক্তব্য অফিসার ইনচার্জ কর্তৃক এজাহার ভুক্ত করা এবং আগত ব্যক্তিকে মামলার নম্বর, তারিখও ধারা  সহ তদন্তকারী অফিসারের নাম ও পদবী অবহিত করবে। তদন্তকারী অফিসার এজাহারকারীর সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করা করে তাকে তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত করবে এবং তদন্ত সমাপ্ত হলে তাকে ফলাফল লিখিত ভাবে  জানিয়ে দিবে।

৭। আহত ভিকটিমকে থানা হতে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করা এবং এ বিষয়ে থানা সকল মেডিকেল সার্টিফিকেট সংগ্রহ করা।

৮। শিশু/ কিশোর অপরাধী সংক্রামত্ম বিষয়ে শিশু আইন, ১৯৭৪ এর বিধান অনুসরণ করা এবং তারা যাতে কোন ভাবেই বয়স্ক অপরাধীর সংস্পর্শ না আসতে পারে তা নিশ্চিত করা। এ জন্য দেশের সকল থানায় পর্যায়ক্রমে কিশোর হাজত খানার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

৯। মহিলা আসামী/ভিকটিমকে যথাসম্ভব মহিলা পুলিশের মাধ্যমে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

১০। পাসপোর্ট ভেরিফিকেশন/আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স ইত্যাদি বিষয়ে  সকল অনুসন্ধান প্রাপ্তির ০৩ (তিন) দিনের মধ্যে তদন্ত সম্পন্ন করে থানা হতে সংশিস্নষ্ট ইউনিটে প্রতিবেদন প্রেরণ করা।

১১। থানা পুলিশ সদস্যগণ কমিউনিটির সাথে নিরবছিন্ন ভাবে যোগাযোগ রক্ষা করা।

১২। অপরাধ দমন মূলক /জনসংযোগমূলক সভার মাধ্যমে সামাজিক সমস্যা এবং আইনগত সমাধান করা

১৩। বিদেশে চাকুরী/ উচ্চ শিক্ষার জন্য গমনেচ্ছু প্রার্থীদের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট প্রদান

১৪। ব্যাংক হইতে কোন প্রতিষ্ঠান অধিক পরিমান টাকা উত্তোলন করলে উক্ত টাকা নিরাপদে নেওয়ার জন্য চাহিদা অনুযায়ী পুলিশ এস্কটের ব্যবস্থা করা

১৫। যানবহন নিয়ন্ত্রনে ট্রাফিক সুবিধা প্রদান করা।

এয়ারপোর্ট থানার টেলিফোন নম্বর

 

সমুহ :

 

 

সহকারী পুলিশ কমিশনার

 

জনাব দেবব্রত সিংহ চৌধুরী

 

 

০১৭১৫-১৩৩৩৬২

অফিসার ইনচার্জ,

 

মো: শাহ জামান

 

০১৭১৩-৩৭৪৫২১

এয়ারপোর্ট থানা

  

টেলিফোন নম্বর

                          ০৮২১-২৮৩১৪৩৫